ভালোবাসার প্রস্তবনা নিয়ে এক আগন্তুক

জানি মন খারাপ, তোমার আঙুল ছুঁয়ে দেওয়ার কেউ নেই পাশে
নিজেই খেয়াল রাখো কালো কোঁকড়ানো চুলগুলোর
আসলে কোথাও কোন অপ্রেমী শহর থাকা উচিৎ নয়
এই কথা আমি বলে আসছি শত শত বছর ধরেই।

আমি প্রস্তাব করি নগরগুলোতে যৌথ খামার শুরু হোক
সেখানে আনাগোনা বাড়ুক ঘুঘু, শালিক, তিতির, ছাতারের
আমার ধারণা এতে দারুন কিছু ঘটতে পারে,
স্বচ্ছ অ্যালকোহলের মতো মাদলের সুর তোমায় ঘিরে খেলতে পারে।

আমি প্রস্তাব করি জীবনকে জ্যামিতিক ছাঁচে না রেখে
আমরা কেউ শিল্পী, কারিগর কিংবা কৃষক হই
হয়তো ভাবছো আমি প্যাচকি লাগানো কথা বলছি
তাহলে এসব বাদ দিয়ে নাহয় আমরা জল পাল্টে নেই।

আর এইযে প্রিয়, তোমার জন্যই এতো কথা বলছি
শহরগুলোকেই পাল্টে দিতে চাচ্ছি গণহারে
যৌথ খামারীদের ফেরাতে চাইছি সবুজ অরণ্যের মাঝে
আর তুমি সেখানে বিচরণ করবে টলটলে শিশিরের মতো।

আর আমি তোমায় কথা দিচ্ছি এই শীতের পরে
রাস্তার গাছগুলো যখন লাল, হলুদ, বেগুনী হয়ে উঠবে
আমি তখন তোমার লোমশ বুকের উত্তাপে নিজেকে পুড়াব,
তারপরে উষ্ণ ঠোঁট জোড়া অপেক্ষায় থাকবে টুকটুকে দিনের জন্য।

5.09.2022
সারদাঘোষ রোড, ময়মনসিংহ

বি. দ্র: ব্যবহৃত ছবি উইকিমিডিয়া কমন্স থেকে নেওয়া হয়েছে। আলোকচিত্রীর নাম: Mujeebcpy

আরো পড়ুন:  প্রশ্ন

1 thought on “ভালোবাসার প্রস্তবনা নিয়ে এক আগন্তুক”

  1. স্পর্ধার কবি
    স্বপন স্বদেশী

    আমি শুধু কবিদের মানুষ বলে গণ্য করি, অপরাধ তাতে কম কিছু নয়, বাকিরা আমাকে হন্যে হয়ে খোজে – কে তুই?
    এতো স্পর্ধা পাখির বাসায় লুকাতে পারিনি
    কবিতায় বলেছি, বলেছি আবেগ প্রেম ভালোবাসার আত্মজীবনীতে
    কবিরাই মানুষ
    কবিদের আছে ঘ্রাণ পাখিদের ডানা মেঘের ভাসান, আছে পদ্ম ফোটা বিল, প্রকৃতিকে ভালোবেসে দেউলিয়া হওয়ার মতো বিলাসিতা
    তোমাদের মতো পার্টইম জীবনের গল্প বলি না বলেই আমি কবি, আমি মানুষ।

    (ভালো থাকবেন)

    Reply

Leave a Comment

error: Content is protected !!