রসিয়া নদী বাংলাদেশের পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও জেলার একটি নদী

রসিয়া নদী বা রসেয়া নদী বা রসায়া নদী (ইংরেজি: Rosia River) হচ্ছে বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলা এবং ঠাকুরগাঁও জেলার ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার একটি নদী। নদীটির দৈর্ঘ্য ১০-১১ কিলোমিটার। নদীটিতে জোয়ার ভাঁটার প্রভাব থাকে না। রসিয়া নদী মূলত টাঙ্গন নদীর উপনদী যা টাঙ্গনের ডান তীরে এসে মিলিত হয়েছে।[১]

প্রবাহ: রসিয়া নদীটি পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের নিম্নভূমি থেকে উৎপত্তি লাভ করেছে।[২] প্রবাহ পথে নদীটি একই উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম অতিক্রম করেছে। রাধানগর ইউনিয়নের রসেয়া বিল থেকে নদীটির এই নাম হয়েছে। এরপর নদীটি এই ইউনিয়ন ও উপজেলার সীমানা নির্ধারণ করেছে, এবং ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা আটোয়ারী উপজেলার সীমানা হিসেবে সামান্য অংশ প্রবাহিত হয়ে রাজাগাও ইউনিয়নের টাঙ্গন নদীতে পতিত হয়েছে। এই নদীতে সারা বছর পানি প্রবাহ থাকে না।

রসেয়া নদীর তীরে মির্জাপুর বাজার, বার আউলিয়া হাট, সরদারপাড়া বাজার এবং কিসমত রেলওয়ে স্টেশন অবস্থিত। এই নদীর মোহনার দক্ষিণে টাঙ্গন ব্যারেজ নির্মাণ করা হয়েছে। নদীটির উপরে একটি রেলসেতু রয়েছে।

রসেয়া নদীর অববাহিকা অঞ্চল বেশ উর্বর। তাই নদীর দুই তীরে প্রচুর সবজি চাষ হয়। পানি উন্নয়ন বোর্ডের টাঙ্গন সেচ প্রকল্প রয়েছে রসেয়ার বিল এলাকায়। নদীর মোহনা টাঙ্গন হওয়ায় ভাটির দিকে উভয় পার্শ্বে সংরক্ষিত এলাকা পরিকল্পনা মাফিক বৃক্ষরোপন সহ উন্নয়নমুলক কাজের মাধ্যমে দর্শনার্থীদের বসা ও  পর্যটনের জন্য পরিবেশ উন্নত করা হয়েছে। বর্তমানে উক্ত এলাকায় টাঙ্গন ব্যারেজ দর্শনার্থীদের আশা যাওয়ার কারনে দোকান পাট ব্যবসা বানিজ্য সহ নানাবিধ উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। এলাকাটি একটি পিকনিক স্পট হিসেবে ব্যবহার যোগ্য আছে।

আলোকচিত্রের ইতিহাস: রসিয়া নদীটির এই আলোকচিত্রটি তুলেছেন রাকিব হাসান আটোয়ারী থেকে আগস্ট ২০২০ তারিখে।

তথ্যসূত্র

১. ম ইনামুল হক, বাংলাদেশের নদনদী, অনুশীলন ঢাকা, জুলাই ২০১৭, পৃষ্ঠা ৪৩।

আরো পড়ুন:  ভক্তি নদী বাংলাদেশের ঠাকুরগাঁওয়ের সদর ও পীরগঞ্জ উপজেলার নদী

২. হানিফ শেখ, ড. মো. আবু (ফেব্রুয়ারি ২০১৬)। “উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় নদ-নদী”। বাংলাদেশের নদ-নদী ও নদী তীরবর্তী জনপদ (প্রথম সংস্করণ)। ঢাকা: অবসর প্রকাশনা সংস্থা। পৃষ্ঠা ৫৪। আইএসবিএন 978-9848797518।

Leave a Comment

error: Content is protected !!