পাহাড়ি বোরা এশিয়ার বিপদমুক্ত এবং বাংলাদেশের অপ্রতুল সাপ

সাপের প্রজাতি

পাহাড়ি বোরা

বৈজ্ঞানিক নাম: Ovophis monticola (Günther, 1864) প্রতিনাম: Trimeresurus monticola Günther, 1864; Trimeresurus convictus Stoliczka, 1870; Lachesis monticola Boulenger, 1896; Ovophis monticola Manthey and Grossmann, 1997. ইংরেজি নাম: Mountain Pit Viper স্থানীয় নাম: পাহাড়ী বোড়া
জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য: Animalia বিভাগ: Chordata অবিন্যাসিত: Reptilia বর্গ: Squamata পরিবার: Viperidae গণ: Ovophis প্রজাতি: Ovophis monticola

ভুমিকা: পাহাড়ি বোরা বা পাহাড়ী বোড়া Ovophis গণের অন্তর্ভুক্ত একটি সাপের প্রজাতি। বাংলাদেশের সাপের তালিকায় এটি অপ্রতুল এবং এশিয়ার বিপদমুক্ত প্রজাতি।

বর্ণনা: এই গণের সরীসৃপ দেখতে পিউপিল উলম্ব ও উপবৃত্তাকার, লোরিয়াল পিট উপস্থিত, মাথা ত্রিকোণাকার, প্রথম উপরের ল্যাবিয়াল সঁচারের মাধ্যমে সম্পূর্ণ পৃথক থাকে। দেহের মধ্যভাগে আঁইশের সংখ্যা, অঙ্কীয় আঁইশের সংখ্যা ১৯০-এর চেয়ে কম (Leviton et al., 2003)।

পাহাড়ী বোড়ার দেহ মোটাসোটা; তুন্ড ছোট, মাথা ত্রিকোণাকৃতি এবং গ্রীবা থেকে সুস্পষ্ট পৃথক; লেজ ছোট ও চাপা। পুরুষ সাপের দৈর্ঘ্য প্রায় ৪৯ সেমি, ৫ লেজের দৈর্ঘ্য প্রায় ৮ সেমি; স্ত্রী সাপের দৈর্ঘ্য ১২৫ সেমি, লেজের দৈর্ঘ্য ১৫ সেমি; সর্বোচ্চ দৈর্ঘ্য ১২৫ সেমি, সদ্য পরিস্ফুটিত সাপের দৈর্ঘ্য ১৮-২০ সেমি।

দেহের উপরিভাগ হালকা গাঢ় বাদামী বা হলদে-গোলাপী থেকে বর্গাকৃতির ছোপ বিক্ষিপ্ত থাকে, পার্শ্বভাগের ছোপ ছোট। মাথা গাঢ় বাদামী এবং চোখ থেকে চোয়ালের কোণায় হালকা বাদামী স্টাইক থাকে । ঠোঁটে হালকা হলুদ বা বাদামী দাগ থাকে। দেহের অঙ্কীয়ভাগ ঈষৎ, মোটামুটি বাদামী রঙেরা দাগ থাকে।

আঁইশের বিন্যাস: আঁইশ মসৃণ বা অস্পষ্ট শিরযুক্ত, গ্রীবায় ২৩ বা ২৫ সারি, দেহের মধ্যভাগে ২৩ বা ২৫ সারি; কখনো ১৯ বা ২১ বা ২৭ সারি এবং পায়ুর সামনে ১৯ বা ১৫ আঁইশ থাকে । অঙ্কীয় আঁইশের সংখ্যা ১২৭-১৭৬টি; পায়ুর আঁইশ অবিভক্ত; নিম্ন-পুচ্ছের আঁইশের সংখ্যা ৩৫-৬২টি, জোড়া থাকে এবং ১টি বা সবকয়টি জোড়াবিহীন থাকে । সুপ্রাঅকুলার বড় এবং ছোট ছোট আঁইশে বিভক্ত, ৫-৯টি সারিতে সাজানো থাকে। আন্তঃনাসিকা দুইটি ছোট আঁইশ দ্বারা বিভক্ত। সুপ্রাল্যাবিয়াল ৭-১০টি, প্রথমটি নাসিকা থেকে সম্পূর্ণ পৃথক, ২য়টি মুখের সংবেদী পিট থেকে পৃথক, ৩য়টি সবচেয়ে বড়, ৪র্থ ও ৫মটি চোখের নিচে অবস্থিত তবে ২-৪ সারি ছোট আঁইশ দ্বারা পৃথক (Günther, 1864; Smith, 1943; Leviton, et al., 2003; Das, 2002; Whitaker and Captain, 2004)।

আরো পড়ুন:  ডুমেরিলের কালোমাথা সাপ বাংলাদেশে অপ্রতুল তথ্যশ্রেণির সাপ

স্বভাব ও আবাসস্থল : পাহাড়ী বোড়া পাহাড়ী বনজঙ্গলে পঁচা-পাতার নিচে, কাঠের গুড়ি শিলাপ, শিলাস্তুপের ফাটলে এবং কাঠের স্তুপে বাস করে । এরা স্থলজ এবং নিশাচর, এরা খাদ্য হিসেবে ইঁদুর, অঞ্জন, টিকটিকি এবং ব্যাঙ গ্রহণ করে। এরা অন্যান্য pit vipers-এর মতো ডিম পাড়ে। স্ত্রী সাপ গর্তে বা পঁচা পাতার নিচে ৫-১৮টি ডিম পাড়ে, ডিমের পরিমাপ ১৮-২০ মিমি (Das, 2002) এবং দেহ প্রসারিত করে ডিম পাহাড়া দেয়। স্ত্রী সাপ বিপদের সম্মুখীন হলে দেহ কুন্ডলী পাকায়। এরা ধীরগতি সম্পন্ন তবে দ্রুত ছোবল মারে (Whitaker and Captain, 2004)

বিস্তার: বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল, থাইল্যান্ড, ভিয়েতনাম এবং কম্বোডিয়া।

অবস্থান: পাহাড়ী বোড়া বিশ্বে বিপদমুক্ত[২] তবে বাংলাদেশে এই প্রজাতির সাপ অপ্রতুল। এর সম্পর্কে তথ্য-উপাত্ত যথেষ্ট নয় (IUCN-Bangladesh, 2000)।

মন্তব্য: নেপাল, ভারত, বাংলাদেশ, মিয়ানমার এবং চীনের। দক্ষিণ অংশে প্রাপ্ত এই প্রজাতির সাপকে 0. n. imonticola নামক উপপ্রজাতি হিসেবে ধরা হয় ।

তথ্যসূত্র:

১. এম আনোয়ারুল ইসলাম (সম্পা.), বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ: উভচর প্রাণী ও সরীসৃপ, খণ্ড: ২৫ (ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি, ২০০৯), পৃ. ১৯০-১৯১।

২. “Ovophis monticola“, https://www.iucnredlist.org/species/178669/7592174,  The IUCN Red List of Threatened Species। সংগ্রহের তারিখ: ১৩ জানুয়ারি ২০১৯।

Leave a Comment

error: Content is protected !!