আপনি যা পড়ছেন
মূলপাতা > প্রাণ > উদ্ভিদ > বৃক্ষ > চাকেমদিয়া ভেষজ গুণসম্পন্ন ও শোভা বর্ধক বৃক্ষ

চাকেমদিয়া ভেষজ গুণসম্পন্ন ও শোভা বর্ধক বৃক্ষ

বৃক্ষ

চামেদিয়া

বৈজ্ঞানিক নাম: Dalbergia lanceolaria L. f., Suppl. PI. Syst. Veg.: 316 (1781). সমনাম: Dalbergia robusta Wall. (1831-1832) ইংরেজি নাম: Takoli স্থানীয় নাম: চামেদিয়া।
জীববৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস  জগৎ/রাজ্য: Plantae. বিভাগ: Angiosperms. অবিন্যাসিত: Edicots. বর্গ: Fabales. পরিবার: Fabaceae. গণ: Dalbergia প্রজাতির নাম: Dalbergia lanceolaria

ভূমিকা: চাকেমদিয়া (বৈজ্ঞানিক নাম: Dalbergia lanceolaria) এক প্রকারের ভেষজ বৃক্ষ। শোভা বর্ধনের জন্য লাগানো হয়।

চাকেমদিয়া-এর বর্ণনা:

বৃহৎ বৃক্ষ, বাকল মসৃণ, ধূসর। পত্র ৭.৫-১৮.০ x ১-২ সেমি, পত্রক ১১-১৭টি, চকচকে, ডিম্বাকার, বিডিম্বাকার বা উপবৃত্তাকার, উপরিভাগ রোমহীন, নিম্নভাগ ফিকে এবং মোটামুটি রোমশ, গোড়া গোলাকার বা প্রায় সূক্ষ্মাগ্র, শীর্ষ স্থূলাগ্র, খাতাগ্র, প্রধান শিরা খুবই তির্যক, অসংখ্য, সমান্তরাল, স্পষ্ট, পত্রবৃন্ত প্রায় ৩.৫ মিমি লম্বা। পুষ্প পুনঃ পুন কাক্ষিক এবং শীর্ষক পত্রহীন প্যানিকল, তামাটে রোমশ, পুষ্পবৃন্ত প্রায় ২ মিমি লম্বা, তামাটে রোমশ, মঞ্জরীপত্র এবং মঞ্জরীপত্রিকা ক্ষুদ্র, আশুপাতী।

বৃতি ৫ মিমি লম্বা, রেশমি রোমশ, দন্তক নলের অর্ধাংশের সমান লম্বা, সিলিয়াযুক্ত, উপরের ২টি স্থূলাগ্র, পার্শ্বীয় ২টি উপরেরটির সমান, প্রায় সূক্ষ্মাগ্র, নিম্নটি সর্বাধিক লম্বা, রেখাকার, বল্লমাকার, সূক্ষ্মাগ্র। দলমন্ডল ফিকে সাদা বা গোলাপি, প্রায় ১ সেমি লম্বা, ধ্বজকীয় পাপড়ি প্রশস্ত। বিডিম্বাকার, প্রশস্ত যা দন্ডের উপর অধিক চর্মবৎ শক্ত।

পুংকেশর ৫টি করে ২ গুচ্ছে। গর্ভাশয় বৃন্তক, সাধারণত গোড়ায় রোমশ, ডিম্বক ৩টি। ফল পড, ৩-৫ x ১-২ সেমি, পাতলা, নমনীয়, একটি বিন্দুতে সরু, রোমহীন বা প্রায় রোমহীন, জালিকাকার শিরাল, সাধারণত ১-বীজী।

ক্রোমোসোম সংখ্যা: ২n = ২০ (Fedorov, 1969)।

আবাসস্থল ও বংশ বিস্তার:

বাগানে লাগানো হয়। ফুল ও ফল ধারণ সময় নভেম্বর-মার্চ। বংশ বিস্তার হয় বীজ এবং মূলের কাটিং দ্বারা

বিস্তৃতি: ভারত, পাকিস্তান এবং শ্রীলংকা । Kumar and Sane (2003) বাংলাদেশে এর বিস্তৃতি রিপোর্ট করেছেন।

আরো পড়ুন:  অশোক গাছের ছাল, বীজের দশটি ওষধি গুণাগুণ

অর্থনৈতিক ব্যবহার ও গুরুত্ব:

ভালো কাঠ উৎপন্ন করে। পাতা গো-খাদ্য হিসাবে ব্যবহৃত হয়। বাকল সবিরাম জ্বরে বহির্ভাগে প্রয়োগ করা হয়। বাকল এবং বীজের তেল বাতরোগে ব্যবহার করা হয় (Kirtikar et al., 2003)।

চামেদিয়া-এর অন্যান্য তথ্য:

বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষের ৮ম খণ্ডে (আগস্ট ২০১০) চাকেমদিয়া প্রজাতিটির সম্পর্কে বলা হয়েছে যে, উদ্ভিদের মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহারের কারণ বাংলাদেশে এটি সংকটাপন্ন হিসেবে বিবেচিত।

বাংলাদেশে চাকেমদিয়া সংরক্ষণের জন্য কোনো পদক্ষেপ গৃহীত হয়নি। প্রজাতিটি সম্পর্কে প্রস্তাব করা হয়েছে যে এই প্রজাতিটি রক্ষার জন্য ইন-সিটু এবং এক্স-সিটু পদ্ধতিতে সংরক্ষণ করা প্রয়োজন।

তথ্যসূত্র:

১. বি এম রিজিয়া খাতুন (আগস্ট ২০১০)। “অ্যানজিওস্পার্মস ডাইকটিলিডনস” আহমেদ, জিয়া উদ্দিন; হাসান, মো আবুল; বেগম, জেড এন তাহমিদা; খন্দকার মনিরুজ্জামান। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ। ৮ম (১ সংস্করণ)। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। পৃষ্ঠা ৫০-৫১। আইএসবিএন 984-30000-0286-0

বি. দ্র: ব্যবহৃত ছবি উইকিমিডিয়া কমন্স থেকে নেওয়া হয়েছে। আলোকচিত্রীর নাম: Dinesh Valke

Dolon Prova
জন্ম ৮ জানুয়ারি ১৯৮৯। বাংলাদেশের ময়মনসিংহে আনন্দমোহন কলেজ থেকে বিএ সম্মান ও এমএ পাশ করেছেন। তাঁর প্রকাশিত প্রথম কবিতাগ্রন্থ “স্বপ্নের পাখিরা ওড়ে যৌথ খামারে”। বিভিন্ন সাময়িকীতে তাঁর কবিতা প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা জীবনের বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক কাজের সাথে যুক্ত ছিলেন। বর্তমানে রোদ্দুরে ডট কমের সম্পাদক।

Leave a Reply

Top
error: Content is protected !!