জানুয়ারি ২

বুকের মাঝখানে রক্তের অবিরাম গতিতে ঘোরে যে বিশ্ব,

তাঁর এক কোণে কাজ করছেন এক লড়াকু তরুণ।

 

হাতে হাতে ঘুরে ঘুরে মায়েদের ঘরে ঘরে উড়ছে যে মুক্তি নিশান,

এক হাত হতে অন্য হাতে, এক কোল হতে অন্য কোলে,

যে শিশুরা লাফালাফি করছে মুগ্ধতায়,

তারাই আজ সবাই পূবের আকাশ

মুক্তির দশকের উদ্বেলিত আগুন দেখে

যে ভীরু কিশোরটিও সাহসী হয়েছে,

তার সবকিছু আজ পূবালী বাতাস।

 

লেনিনের বিপ্লবের টুকরো টুকরো অংশগুলো

অশ্বের খুরের আঘাতে

ছড়িয়ে পড়েছে এই নীল গ্রহের দশদিকে,

লাল লাল শ্রমিকের বুকে যতদিন আছে সেই সাম্যের ডাক,

ততদিন এই গৃহ হয়ে আছে সীমানাহীন

লেনিন।

 

অগ্নিবলাকার পাখায় ভর দিয়ে আসবে যে যুগ

তারই সুর শুনে শুনে এদিক ওদিকের

দেয়ালে দেয়ালে ঘষি খড়িমাটি;

এপার-ওপার দুই পারে কত শত নদী,

তার সব ছোট ছোট বালুকণায় ভিড় করে আসছে দাপাতে

পূর্বের পলিমাটি।

 

নয়া গণতন্ত্রের আলো কাঞ্চনজঙ্ঘার বুকে ঠিকরে পড়তেই

গণ কমিউনে সাইরেনের শব্দ শুরু হতেই

বিপ্লবের খুরধার তর্জনী সামনে আগাতেই

রণসঙ্গীতের ইঙ্গিতবাহী সুর বাঁশিতে বাজতেই

রাইফেলের ট্রিগারে আঙুল ছোঁয়াতেই

ক্ষমতামদ মত্ত সিংহাসনের তলায় শায়িত

প্রাচ্য স্বৈরাচারের সবচেয়ে দাম্ভিক কেরানিটিও ভয়ে থরথর।

 

জনগণ ডাকে,

ভয় নেই তার ক্ষয় নেই,

শোনে যেই,

অমৃত মুক্তির গান, পূর্ব দেশের প্রাণ,

সোভিয়েত রাজ,

অদম্য সিরাজ।

 

রচনাকাল: ২ জানুয়ারি, ২০১৮

Leave a Comment

error: Content is protected !!