শ্রীমতী নদী বাংলাদেশের ঠাকুরগাঁও এবং পশ্চিমবঙ্গের উত্তর দিনাজপুর জেলার একটি নদী

শ্রীমতী নদী বা চূড়ামতী নদী (ইংরেজি: Srimoti River) হচ্ছে বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলা এবং পশ্চিমবঙ্গের উত্তর দিনাজপুর জেলার একটি নদী। নদীটির দৈর্ঘ্য ২০-২৫ কিলোমিটার। নদীটিতে জোয়ার ভাঁটার প্রভাব থাকে না। চূড়ামতী নদী মূলত মহানন্দা নদীর উপনদী।[১]

প্রবাহ: শ্রীমতী নদীটি ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার জাবরহাট ইউনিয়নের বড়বাড়ি বিল থেকে উৎপত্তি লাভ করেছে। প্রবাহ পথে নদীটি একই উপজেলার একই ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম অতিক্রম করেছে এবং মাটিয়ানি ও চন্দরিয়া হয়ে বৃদ্ধিগাঁওতে মিলিত হয়েছে। এরপর নদীটি বাংলাদেশের সীমানা অতিক্রম করে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তর দিনাজপুর জেলার অনন্তপুর পঞ্চায়েতের ভুরকুতপাড়া হয়ে এগিয়ে গেছে। এই নদীতে সারা বছর পানি প্রবাহ থাকে না। বাংলাদেশ অংশে নদীটির দৈর্ঘ্য ৩-৪ কিলোমিটার হলেও ভারতের অংশে বেশ তেজবান ও দীর্ঘকায়।

শ্রীমতী নদী কালিয়াগঞ্জ ব্লক ও শহর হয়ে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার কুশমন্ডি ছুয়ে হরিরামপুর ব্লক দিয়ে মালদা জেলায় গিয়েছে।মালদা জেলার বামনগোলা দিয়ে হবিপুরে মহানন্দায় মিশেছে। একশতক আগে প্রানবন্ত এই শ্রীমতি নদী এখন অস্তিত্ব সংকটে ।

চূড়ামতী নদী নদীর তীরে চৌরঙ্গীহাট, এবং উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ পৌরসভা অবস্থিত। এই নদীর উপরে একাধিক সেতু রয়েছে।

শ্রীমতী নদীর অববাহিকা অঞ্চল বেশ উর্বর। তাই নদীর দুই তীরে প্রচুর সবজি ও ধান চাষ হয়। নদীর মোহনা ও ভাটির দিকের সাথে পশ্চিমবঙ্গের জনগণের সাথে সাংস্কৃতিক ঐক্য আছে। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন স্থানে নদীর দুই তীরে পরিকল্পনা মাফিক বৃক্ষরোপন সহ উন্নয়নমুলক কাজের মাধ্যমে দর্শনার্থীদের বসা ও পর্যটনের জন্য পরিবেশ উন্নত করা যেতে পারে।

আলোকচিত্রের ইতিহাস: শ্রীমতী নদীটির এই আলোকচিত্রটি কালিয়াগঞ্জ পৌরসভা থেকে তুলেছেন প্রান্তু প্রামাণিক নভেম্বর ২০১৯ তারিখে। দূরে রেল ব্রিজ দেখা যাচ্ছে।

তথ্যসূত্র

১. হানিফ শেখ, ড. মো. আবু (ফেব্রুয়ারি ২০১৬)। “উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় নদ-নদী”। বাংলাদেশের নদ-নদী ও নদী তীরবর্তী জনপদ (প্রথম সংস্করণ)। ঢাকা: অবসর প্রকাশনা সংস্থা। পৃষ্ঠা ৭০। আইএসবিএন 978-9848797518।

আরো পড়ুন:  আশাউড়া নদী বাংলাদেশ মেঘালয়ের আন্তঃসীমান্ত নদী

Leave a Comment

error: Content is protected !!