দুই দিনব্যাপী কর্মসূচীর মধ্যে দিয়ে যথাযথ মর্যদায় পালিত হলো ”জাতীয় শহীদ দিবস”

২ জানুয়ারি ২০২০ ছিলো শহীদ কমরেড সিরাজ সিকদারের ৪৫তম শহীদ দিবস। সকল শহীদ ও প্রয়াত বিপ্লবী ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনের নেতা-কর্মীদের স্মরণে প্রতি বছরের মতো এবারও দিনটিকে যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে ‘জাতীয় শহীদ দিবস’ হিসেবে পালন করেছে শহীদ বিপ্লবী ও দেশপ্রেমিক স্মৃতি সংসদ।

‘জাতীয় শহীদ দিবস’-এ দুই দিনব্যাপী কর্মসূচী গ্রহণ করে শহীদ বিপ্লবী ও দেশপ্রেমিক স্মৃতি সংসদ। প্রথম দিনে ২ জানুয়ারি (বৃহস্পতিবার) সকালে শহীদ বিপ্লবী ও দেশপ্রেমিক স্মৃতি সংসদের সভাপতি কমরেড হাসান ফকরীর নেতৃত্বে ঢাকার শ্যামলী সিনেমা হলের সামনে সমবেত হয়ে মোহাম্মদপুর গোরস্থান পর্যন্ত এক স্লোগানমুখর প্রভাতফেরী শেষে শহীদ কমরেড সিরাজ সিকদারের সমাধিস্থলে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় ৩ জানুয়ারি (শুক্রবার) বিকাল ৩টায়, ২২/১ তোপখানা রোডস্থ শিশুকল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বামপন্থী সংগঠন এবং প্রগতিশীল ব্যক্তিরা সমবেত হয়ে অনুষ্ঠান সফল করেন। উক্ত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন শহীদ বিপ্লবী ও দেশপ্রেমিক স্মৃতি সংসদের সভাপতি কমরেড হাসান ফকরী। সঞ্চালনা করেন বিপ্লবী শ্রমিক আন্দোলনের আহ্বায়ক বিপ্লব ভট্টাচার্য।

আলোচনা সভার শুরুতে উপস্থিত সবাই দাঁড়িয়ে শহীদ ও প্রয়াত বিপ্লবীদের প্রতি এক মিনিট নীরবতা পালন করেন। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন প্রগতিশীল লেখক ও মঙ্গলধ্বনি পত্রিকার সম্পাদক শাহেরীন আরাফাত, বিপ্লবী শ্রমিক আন্দোলনের সহ আহ্বায়ক লাবণী মণ্ডল, খনন পত্রিকার সম্পাদক বাদল শাহ আলম, জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্টের (এনডিএফ) সাধারণ সম্পাদক ব্রিগেডিয়ার (অব.) জাহাঙ্গীর হোসাইন, জ্বালানি গবেষক বি ডি রহমতউল্লাহ, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের সম্পাদক ডা. ফয়জুল হাকিম, জাতীয় গণতান্ত্রিক গণমঞ্চের সভাপতি মাসুদ খান এবং নয়াগণতান্ত্রিক গণমোর্চার সভাপতি জাফর হোসেন। অনুষ্ঠানে স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন আসমা বেগম ও রইস মুকুল এবং নাসিমা নাজনীন বীরেন্দ্র চ্যাটার্জির অনূদিত কবিতা আবৃতি করেন ।

বক্তারা কমরেড সিরাজ সিকদার, কমরেড আসাদ, কমরেড মনিরুজ্জামান তারা, কমরেড এরাদ আলী, কমরেড মোফাখখার চৌধুরী, কমরেড মিজানুর রহমান টুটুসহ পাকিস্তান আমল থেকে এখন পর্যন্ত সকল শহীদদের শ্রদ্ধা জানান। সেই সঙ্গে আজীবন বিপ্লবী ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনে অবদান রেখে প্রয়াত হওয়া- কমরেড ননী গোপাল দত্ত, কমরেড শিবলী কাইয়ূম, কমরেড নাজমুল, কমরেড সুলতান হাফিজ, কমরেড নিজাম উদ্দিন মতিনসহ অন্যান্যদের শ্রদ্ধা জানান ও জীবন সংগ্রাম নিয়ে আলোচনা করেন।

আরো পড়ুন:  নেপালের সাধারণ নির্বাচন শেষে সংশোধনবাদী বামপন্থিরা এগিয়ে

সব সরকারের আমলেই যেভাবে বিপ্লবী ও গণতান্ত্রিক নেতা-কর্মীদের নির্যাতন ও হত্যাকাণ্ড চলেছে তার সমালোচনা বক্তারা তুলে ধরেন। দেশে বিদ্যমান আওয়ামী ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান বক্তারা।

Leave a Comment

error: Content is protected !!